বাংলাদেশ

জলাবদ্ধতা নিরসনে ব্যর্থ ঢাকা ওয়াসা

প্রকাশ: ২৫ এপ্রিল ২০১৭, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ণ

জলাবদ্ধতা নিরসনে ঢাকা ওয়াসা একটি ব্যর্থ সংস্থা বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। 

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে ‘ঢাকা উৎসব-২০১৭’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।
নগরীর জলাবদ্ধতার জন্য ঢাকা ওয়াসাকে দায়ী করে সাঈদ খোকন বলেন, ‘গত কয়েক দিন টানা বর্ষণে ঢাকা শহরে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এই জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব ওয়াসার। তারা একটু সহযোগিতা করলে এ সমস্যা দূর হতো। কিন্তু তারা এসব বিষয়ে মনোযোগ না দিয়ে হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের পেছনে ছুটছে। তিনি বলেন, ‘ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনে ওয়াসাকে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে একীভূত করা প্রয়োজন। অন্যথায় ওয়াসার নেতৃত্বে পরিবর্তন আনা জরুরি। এভাবে এই সংস্থাটিকে চলতে দেওয়া যায় না।’
ডিএসসিসির মেয়র বলেন, শহরের অনেক জায়গায় ওয়াসার সরবরাহ করা লাইনে পানি নেই। যেখানে পানি আছে, সেখানে আবার দুর্গন্ধযুক্ত। এসব সমস্যা সমাধানে ওয়াসাকে বলা হলে তারা বলে বরাদ্দ নেই।
সাঈদ খোকন বলেন, ঢাকা শহরে নাগরিকদের নানান সমস্যা সমাধানে ২৬টি সংস্থা রয়েছে। এর মধ্যে কিছু সমস্যা সমাধানে সিটি করপোরেশনের এখতিয়ার নেই। কিন্তু নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে তা মেনে নেওয়া যায় না। তাই এই সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় করতে শিগগিরই তা ক্রমান্বয়ে সমাধান করা হবে। এতে এক রাস্তা সাতবার কাটা বন্ধ হবে।
মেয়র বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিরাপদে সাইকেলে চলাচলের সুবিধার্থে ক্যাম্পাস এলাকায় একটি বাইসাইকেল লেন করে দেওয়া হবে। ঢাকাকে একটি পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সবাইকে সচেতন ও সহায়তা করতে হবে। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে ঢাকার পরিবেশ বদলে যেতে শুরু করেছে। এর উন্নয়ন দৃশ্যমান হচ্ছে। ভবিষ্যতে আরও দৃশ্যমান হবে।
অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ নগর গড়া নগর পিতার কাজ। সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছেন মেয়র সাঈদ খোকন। এ সময় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি বড় ও আধুনিক মিলনায়তন তৈরি করে দেওয়ার জন্য মেয়রের কাছে দাবি জানান।
ঢাকা ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি রায়হানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলাল, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শেখ সালাউদ্দিন, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ইউসুফ আলী সরদার, ২১ ও ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর যথাক্রমে এম এ হামিদ খান ও হাসিবুর রহমান, ঢাকা ডিবেটিং সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল কবীর, মডারেটর মাহবুবা নাসরিন প্রমুখ বক্তব্য দেন।
পাঁচ দিনব্যাপী এই উৎসবে বিতর্ক, বারোয়ারি বিতর্ক, স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতা, সংগীত ও ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতা এবং প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে ঢাকা ডিবেটিং সোসাইটি। এতে ঢাকা শহরের ১১২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সহস্রাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর দুপুর সাড়ে ১২টায় টিএসসির সামনে থেকে শোভাযাত্রা বের হয়। পরে শোভাযাত্রাটি চারুকলা অনুষদের সামনে দিয়ে প্রদক্ষিণ শেষে টিএসসিতে এসে শেষ হয়।